প্যারাসিটামল ট্যাবলেটে কোনও ভাইরাসের সন্ধান পাওয়া যায়নি

False Medical

বিশ্বজুড়ে করোনা অতিমারি শুরু হওয়ার প্রায় এক বছর হয়ে গেলেও এই ভাইরাস নিয়ে মানুষের সচেতনতার অভাব রয়েই গেছে। কোভিডের শুরু থেকেই আমরা এই রোগের বিষয়ে ছড়িয়ে পড়া সমস্ত ভুয়ো খবরের তথ্য যাচাই করেছি। সম্প্রতি ফের এই জাতীয় আরেকটি ভুয়ো খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। ভুয়ো পোস্ট শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে, প্যারাসিটামল পি-৫০০ ট্যাবলেটে ম্যাচাপু নামে একটি মারণ ভাইরাস পাওয়া গিয়েছে। পোস্টের কোলাজ ছবিতে দেখা যাচ্ছে একটি পি-৫০০ ট্যাবলেট রয়েছে। সঙ্গে আরও দেখা যাচ্ছে একজন নার্স একজন ব্যাক্তিকে ইঞ্জেকশন দিচ্ছেন। এর ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, “সাবধান! বাজারে নতুন একটি ঔষুধ #প্যারাসিটামল P-500 নামের ঔষুধ আসছে। যাতে ম্যাচাপু নামের মরনাত্বক ভাইরাস পাওয়া গেছে। ঔষুধ টি খাবার পর পরই আপনার শারীরীক অবকাঠামো এবং পুরো শরীরটাতে পচন ধরে যাবে। জনস্বার্থে তথ্যটি পরিবার পরিজনদের জানানোর অনুরোধ রইলো সেই সাথে আপনার নিকটস্ত ঔষুধের দোকান গুলো পর্যবেক্ষন করেন যাতে এমন ঔষুধ কেউ বিক্রি করতে না পারে।“ 

তথ্য যাচাই করে আমরা দেখতে পেয়েছি এই দাবি ভুয়ো এবং বিভ্রান্তিকর। প্যারাসিটামল পি-৫০০ ট্যাবলেটে ম্যাচাপু বা অন্য কোনও ভাইরাস খুঁজে ভাইরাস পাওয়া যায়নি।

Paracetamol claimn.png
প্রতিবেদন আর্কাইভ

২০১৭ সালেও এই ভুয়ো খবরটি তুমুল হারে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছিল। 

Para 2017.png
প্রতিবেদন আর্কাইভ

উল্লেখ্য, ‘ম্যাচাপু’ নামে এক ভাইরাস উত্তর ও পূর্ব বলিভিয়ায় দেখা যায়। ১৯৬২-১৯৬৪ সালের দিকে এটি বলিভিয়ায় মহামারি আকারে দেখা দেয়। ২০০৮ সালে আবার এই ভাইরাসের সংক্রমণ আবারও বৃদ্ধি। কিন্তু এর বাইরে অন্য কোন দেশে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েনি। 

তথ্য যাচাই 

প্রথমেই আমরা এই বিষয়ে জানার জন্য একজন বিশেষজ্ঞের সাথে যোগাযোগ করি। রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালের মেডিসিনের ডাক্তার পার্থ সারথি রায়ের সাথে যোগাযোগ করি। তিনি আমাদের জানান, “এই দাবিটি একবারেই ভুয়ো। এই জাতীয় কোনও খবর আমার কাছে নেই। এরকম কোনও ঘটনা ঘটলে সরকারের তরফে পদক্ষেপ নেওয়া হত এবং আমাদের এই বিষয়ে জানানো হত।“

এরপর কিওয়ার্ড সার্চ করে দেখতে পাই, ২০১৭ সালে মালয়েশিয়ায় এই ভুয়ো দাবিটি ছড়িয়ে পড়েছিল। সেসময় ওই দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রক একটি বিবৃতি জারি করে জানায় এই দাবিটি একেবারেই ভুয়ো। সংবাদমাধ্যম ‘সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট’ এই মর্মে একটি প্রতিবেদনও প্রকাশ করে। 

Malayesgia.png
প্রতিবেদন আর্কাইভ

এছাড়া, সিঙ্গাপুরের ‘হেলথ সাইন্স অথোরিটি’ তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে একটি বিবৃতি জারি করে জানান প্যারাসিটামল পি-৫০০ ওষুধে কোনও ভাইরাল পাওয়া যায়নি। 

HRS.png
প্রতিবেদন আর্কাইভ

নিষ্কর্ষঃ তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো সিদ্ধান্তে এসেছে উপরোক্ত দাবিটি ভুল। প্যারাসিটামল পি-৫০০ ট্যাবলেটে ম্যাচাপু ভাইরাস খুঁজে ভাইরাস পাওয়া যায়নি।

Avatar

Title:প্যারাসিটামল ট্যাবলেটে কোনও ভাইরাসের সন্ধান পাওয়া যায়নি

Fact Check By: Rahul A 

Result: False

Leave a Reply

Your email address will not be published.