পরিমনিকে নিয়ে টক শো’তে মারামারিঃ পুরনো ভিডিওকে শেয়ার করে ভুয়া দাবি

False Social

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে, লাইভ টক শো’তে অভিনেত্রী পরিমনিকে নিয়ে মারামারি শুরু হয়ে গিয়েছে। ভিডিওতে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের মোট পাঁচটি ক্লিপ দেখা যাচ্ছে যেখানে সঞ্চালক এবং অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে তর্কাতর্কি লেগে গিয়েছে। পোস্টের ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, “পরি মনি কে নিয়ে লাইভ টকশোতে মারামারি!” 

তথ্য যাচাই করে আমরা দেখতে পেয়েছি এই দাবি ভিত্তিহীন এবং বিভ্রান্তিকর। পাঁচটি পুরনো টেলিভিশন টক শো’য়ের ভিডিওকে পরিমনির সাথে জুড়ে ভুয়া খবর ছড়ানো হচ্ছে। 

ফেসবুক পোস্ট

প্রসঙ্গত, একাধিক বিয়ে, তাঁর নামে পর্ন ভিডিও ইত্যাদি নিয়ে বরাবরইর বিতর্কে জড়িয়ে থাকেন পরিমনি। তার বাড়ি থেকে উদ্ধার ৩০টিরও বেশি বিদেশি মদের বোতল ও এলএসডি নেশা করার জন্য ব্লটিং কাগত ও কিছু মাদক। বাংলাদেশের র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)-এর হেফাজতে রয়েছেন তিনি। তার বিরুদ্ধে তদন্ত চালাচ্ছে পুলিশ।  

তথ্য যাচাই

ভিডিওটি দেখে আমরা বুঝতে পারি সেখানে মোট পাঁচটি ভিন্ন ক্লিপ রয়েছে। নিচে প্রতিটি ক্লিপের তথ্য যাচাই দেওয়া হল। 

প্রথম ক্লিপ

রিভার্স ইমেজ সার্চ করে দেখতে পাই, ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম ‘জি হিন্দুস্তান’-এর ২০১৮ সালের একটি ভিডিওতে এই দৃশ্য দেখতে পাই। তিন তালাক নিয়ে টক শো চলাকালীন একজন নারী আইনজীবীর সাথে একজন মাওলানার তর্কাতর্কি শুরু হয়। তারপর তাদের মধ্যে মারামারির মতো পরিস্থিতি হয়ে যায়। 

দ্বিতীয় ক্লিপ

তথ্য যাচাই করে দেখতে পাই এটি সংবাদ মাধ্যম ‘একাত্তর টিভি’-এর ২০১৪ সালের ১২ অগস্টের একটি টক শো’য়ের ভিডিও। নারায়ণগঞ্জ ৭ খুন নিয়ে একটি আলোচনায় কথা কাটাকাটি শুরু হয় নারায়ণগঞ্জের সাংসদ শামীম ওসমান ও মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী-এর মধ্যে। 

তৃতীয় ক্লিপ

ভাইরাল ভিডিওর এই অংশটি হল সংবাদ মাধ্যম ‘গাজি টেলিভিশন’-এর ২০১৪ সালের ১০ ফেব্রুয়ারির আলোচনা সভার ভিডিও। ভিডিওতে সাবেক সাংসদ মুক্তিযোদ্ধা মেজর আক্তারুজ্জামান এবং শিক্ষক মোহাম্মদ আরাফাতকে তর্কাতর্কি করতে দেখা যায়। 

চতুর্থ ক্লিপ

অনুসন্ধান করে দেখতে পাই এই ক্লিপটি ২০১১ সালের। সংবাদ মাধ্যম ‘আই টিভি’-এর ‘তৃতীয় মাত্রা’ টক শোয়ের একটি পর্বে দুজন প্যানেলিস্ট বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। ‘জাভেদ আলম’ নামের একটি ইউটিউব চ্যানেলে এই ভিডিওটি খুঁজে পাওয়া যায়। 

পঞ্চম ক্লিপ

রিভার্স ইমেজ সার্চ করে দেখতে পাই ভিডিওর এই অংশটি ২০১৫ সালের। ‘লাইভ উইথ হারুন’ নামের একটি ইউটিউব চ্যানেলে এই ক্লিপটি খুঁজে পাওয়া যায়। একুশে টিভির একটি টিভি শোতে দেখা যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এম শাহীদুজ্জামান এবং সাবেক মেজর জেনারেল আব্দুর রশীদের মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। পরে তা হাতাহাতিতে নেমে যায়। 

উপরোক্ত প্রমাণ থেকে স্পষ্ট প্রমাণ নয় পুরনো পাঁচটি ভিন্ন ভিন্ন ঘটনার ক্লিপকে পরিমনির সাথে জুড়ে ভুয়া দাবির সাথে ভাইরাল করা হচ্ছে। 

নিষ্কর্ষঃ তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো সিদ্ধান্তে এসেছে উপরোক্ত দাবিটি ভুল। পাঁচটি পুরনো টেলিভিশন টক শো’য়ের ভিডিওকে পরিমনির সাথে জুড়ে ভুয়া খবর ছড়ানো হচ্ছে।

Avatar

Title:পরিমনিকে নিয়ে টক শো’তে মারামারিঃ পুরনো ভিডিওকে শেয়ার করে ভুয়া দাবি

Fact Check By: Rahul A 

Result: False

Leave a Reply

Your email address will not be published.