২০১৮ সালের প্রেমিক-প্রেমিকার পালিয়ে বিয়ে করার একটি ঘটনাকে ভুয়ো দাবির সাথে ভাইরাল

False Social

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি ছবি শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে, নোয়াখালীতে পরকীয়ার পর আপন ভাই-বোন বিয়ে করল। পোস্টে একজন যুবক এবং যুবতীর পাশাপাশি দাড়িয়ে থাকা ছবি দেওয়া রয়েছে এবং ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, “নোয়াখালীতে পরকীয়ার পর আপন ভাই-বোনের বিয়ে : দুজনকেই ত্যাজ্য করলেন বাবা।“ 

তথ্য যাচাই করে দেখতে পেয়েছি এই দাবি ভিত্তিহীন এবং বিভ্রান্তকর। ২০১৮ সালের প্রেমিক-প্রেমিকার পালিয়ে বিয়ে করার একটি ঘটনাকে ভুয়ো দাবির সাথে ভাইরাল করা হচ্ছে। 

Noakhali Incest marrige.png
ফেসবুক পোস্ট আর্কাইভ

তথ্য যাচাই

এই দাবির সত্যতা যাচাই করতে প্রথমে ভাইরাল ছবিটিকে গুগলে রিভার্স ইমেজ সার্চ করি। ফলাফলে মূলধারার সংবাদমাধ্যম ‘যুগান্তর’-এর একটি খবরে এর অনুসন্ধান পাওয়া যায়। ২০১৮ সালের ২০ জানুয়ারি প্রকাশিত এই প্রকাশিত এই প্রতিবেদন থেকে জানতে পারি, ছবি ছেলে এবং মেয়েটি সম্পর্কে ভাই বোন নয়। ছেলেটির নাম মতিউর রহমান দুর্জয়ের। তার বাড়ি বিনসাড়া গ্রামে এবং সে ঢাকার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। অন্যদিকে, মেয়েটির নাম হল রিতা সরকার। তার বাড়ি মনোহরপুর গ্রামে এবং সে বগুড়া ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজি কলেজের শিক্ষার্থী। এই দুইজন একে অপরের সাথে ৮ বছর ধরে প্রেম করার পর ৭ জানুয়ারি পালিয়ে বিয়ে করে। মেয়ের পরিবার ছেলেটির বিরুদ্ধে অপহরণের মামলা দায়ের করে। 

17321017-0f07bd23f09d7e1bae086be46a38d059.png
যুগান্তর প্রতিবেদনআর্কাইভ

সংবাদমাধ্যম ‘বিডিলাইভ ২৪’-এর ২০১৮ সালের একটি প্রতিবেদনেও এই একই ঘটনার বর্ণনা পাওয়া যায়। এই প্রতিবেদনেও এই দুই জনকে প্রেমিক প্রেমিকা হিসেবেই দাবি করা হয়েছে। এই দুজন এক অপরের ভাই বোন এজাতীয় কোনও তথ্য আমরা দেখতে পাইনি। প্রতিবেদনটি পড়ুন এখানে। 

অন্যদিকে, কিওয়ার্ড সার্চ করে ২০১৯ সালের জয়পুরহাটে ভাই বোনের বিয়ের একটি ঘটনার খবর দেখতে পাই। সংবাদমাধ্যম ‘বিডি-জার্নাল’-এর ২০১৯ সালের ২০ অক্টোবরের একটি প্রতিবেদন থেকে জানতে পারি, জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে পরকীয়ায় জড়ানোর পর বিবাহ করে একই বাবার দুই সন্তান। প্রতিবেদন অনুযায়ী, “উপজেলার তারাকুল গ্রামের বাসিন্দা আব্দুর রশিদের প্রথম স্ত্রীর ছেলে শিজু (৩৫) এবং দ্বিতীয় স্ত্রীর মেয়ে রাজিয়া খাতুন (২৬) নিকা রেজিস্ট্রিমূলে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন।“ প্রতিবেদনটি পড়ুন এখানে। 

এই ঘটনার সাথে ভাইরাল ছবি কোনও সম্পর্ক নেই। সমস্ত প্রমাণ এবং যুক্তি থেকে স্পষ্টভাবেই বলা যায় ভাইরাল পোস্টের দাবির কোনও ভিত্তি নেই। 

নিষ্কর্ষঃ তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো সিদ্ধান্তে এসেছে উপরোক্ত দাবিটি ভুল ও ভিত্তিহীন। ২০১৮ সালের প্রেমিক-প্রেমিকার পালিয়ে বিয়ে করার একটি ঘটনাকে ভুয়ো দাবির সাথে ভাইরাল করা হচ্ছে।

Avatar

Title:২০১৮ সালের প্রেমিক-প্রেমিকার পালিয়ে বিয়ে করার একটি ঘটনাকে ভুয়ো দাবির সাথে ভাইরাল

Fact Check By: Rahul A 

Result: False

Leave a Reply

Your email address will not be published.