২০২০ সালের মদনের নৌকাডুবির ঘটনাকে সম্প্রতির দাবি করে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে

Missing Context Social

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি পোস্ট শেয়ার করে দাবি করা হচ্ছে, ময়মনসিংহে নৌকা ডুবিতে ১৭ জন কোরআন হাফেজ মারা গিয়েছেন। পোস্টের ছবিতে দেখা যাচ্ছে কয়েকটি খাট মাটিতে রাখা রয়েছে এবং জানাজার প্রস্তুতি চলছে।

পোস্টের ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, “২২/০৯/২০২১ একটি শোক সংবাদ ময়মনসিংহে ১৭জন বোন কোরআনের হাফেজা হয়েছেন হিফয শেষ করে সকলে নৌকা ভ্রমণের উদ্দেশ্য রওয়ানা দেন। ফেরার পথে তাদের নৌকা ডুবে ১৭জনেই মৃত্যু বরণ করেন, ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন । আল্লাহ প্রিয় বোন গুলোকে জান্নাতের উচ্চ মাকাম দান করুন আমিন।“

তথ্য যাচাই করে আমরা দেখতে পেয়েছি এই দাবি বিভ্রান্তিকর। ২০২০ সালের নেত্রকোনার মদনের নৌকা ডুবির ঘটনাকে সম্প্রতির দাবি করে ভুয়ো খবর ছড়ানো হচ্ছে।

Bdesh Boat accident.png
ফেসবুক পোস্টআর্কাইভ

এর আগেও বাংলাদেশ নৌকা ডুবি বা লঞ্চ দুর্ঘটনা নয়ে ভুয়ো খবর ছড়ানো হচ্ছিল। ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো বাংলাদেশ  তথ্য যাচাই করে প্রমাণ করে পোস্টগুলি বানোয়াট। পড়ুন এখানে এবং এখানে। 

তথ্য যাচাই

এই দাবির সত্যতা যাচাই করতে ছবিটিকে গুগলে রিভার্স ইমেজ সার্চ করি। ফলাফলে সংবাদ মাধ্যম ‘বাংলা ট্রিবিউন’-এর ২০২০ সালের ৬ অগস্ট তারিখের একটি প্রতিবেদনে এর অনুসন্ধান পাই। এই প্রতিবেদনের শিরোনামে লেখা রয়েছে, মদনে নৌকাডুবিতে নিহতদের দাফন সম্পন্ন। খবরটি পড়ে জানা যায়, নেত্রকোনার মদন উপজেলায় উচিতপুরের হাওরে নৌকাডুবিতে ১৭ জনের মৃত্যু হয়। ৬ অগস্ট ওই নিহতদের মধ্যে ৯ জনকে ময়মনসিংহ সদরের কোনাপাড়া ঈদগাহ মাঠের পাশের কবরস্থানে দাফন করা হয়। বাকি ৮ জনকে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

download - 2021-09-25T130633.458.png
প্রতিবেদনআর্কাইভ

এরপর কিওয়ার্ড সার্চ করে সংবাদ মাধ্যম ‘বিডিনিউজ ২৪’-এর ২০২০ সালের ৬ অগস্টের প্রতিবেদন থেকে জানতে পারি, এই ইঞ্জিনচালিত নৌকা ডুবির দুর্ঘটনায় মৃত ১৭ জনের মধ্যে ৮ জন ছিল একই প্ররিবারের। প্রতিবেদন অনুযায়ী তাদের নাম হল, “ময়মনসিংহ সদর উপজেলার ৫ নম্বর সিরতা ইউনিয়নের কোনাপাড়া গ্রামের মাদ্রাসায়ে মারকাযুস সুন্নাহ মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা ও মোহতামিম মাহফুজুর রহমান মেয়াজ উদ্দিন (৩৮), তার বড় ছেলে মাহবুবুর রহমান আসিফ (১৭), ছোট ছেলে মাহমুদুর রহমান (১৪), ভাগ্নে রেজাউল করিম (১৮), ভাতিজা, মো. জুবায়ের হোসাইন (১৯), মো. মুজাহিদ মিয়া (১৪), মাহফুজুর রহমান মেয়াজ উদ্দিনের ভাতিজী লুবনা আক্তার (১০) ও জুলফা আক্তার (৭)।“ 

এছাড়া, ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো নিশ্চিত হয়েছে যে সম্প্রতি ময়মনসিংহে কোনও নৌকা ডুবির ঘটনা ঘটেনি। অতএব ওপরে দেওয়া প্রমাণ থেকে স্পষ্টভাবে বলা যায় পুরনো খবরকে সম্প্রতির দাবি করে ভুয়ো ছবি ভাইরাল করা হচ্ছে। 

নিষ্কর্ষঃ তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো সিদ্ধান্তে এসেছে উপরোক্ত দাবিটি ভুল ও ভিত্তিহীন। ২০২০ সালের নেত্রকোনার মদনের নৌকা ডুবির ঘটনাকে সম্প্রতির দাবি করে ভুয়ো খবর ছড়ানো হচ্ছে।

Avatar

Title:২০২০ সালের মদনের নৌকাডুবির ঘটনাকে সম্প্রতির দাবি করে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে

Fact Check By: Rahul A 

Result: Missing Context

Leave a Reply

Your email address will not be published.