২০১৪ সালের ঘটনাকে মুহম্মদের (সা.) ব্যাঙ্গচিত্র অঙ্কনকারীর শিল্পীর মৃত্যুর সাথে যুক্ত করে ভুয়া পোস্ট ভাইরাল

International Missing Context
Thumbnail - Lars Vilks video.png

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও শেয়ার সেটিকে হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর ব্যাঙ্গচিত্র অঙ্কনকারী শিল্পী লার্স ভিল্কসের সড়ক দুর্ঘটনায় ঘটনা বলে দাবি করা হচ্ছে। পাঁচ মিনিটের এই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে একটি গাড়ির সামনের অংশে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলছে। আশে বেশ কয়েকজন লোক রয়েছে এবং আগুন নেভানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু অগ্নিশিখার তীব্রতা এত বেশি তাদের চেষ্টার কোনও ফল হচ্ছে না। 

পোস্টের ক্যাপশনে লেখা রয়েছে, “ফেরাউন-নমরুদরাই বেচে থাকার জন্য শতশত সিকিউরিটি রাখে। কিন্তু আল্লাহর সিকিউরিটি না থাকলে এভাবেই নৃশংসভাবে মরতে হয়। ফ্রান্সে মহানবী সা.এর ব্যঙ্গচিত্র আকা ভ্রস্ট শিল্পীর মর্মান্তিক মৃত্যুতে পুরো মুসলিম মিল্লাতের মনে ঈদের খুশি বইছে। এ যেনো এক বিজয়. হৃদয়ে মোহাম্মাদ সা.।“ 

তথ্য যাচাই করে আমরা দেখতে পেয়েছি এই দাবি ভিত্তিহীন এবং বিভ্রান্তিকর। ২০১৪ সালের রাশিয়ার একটি সড়ক দুর্ঘটনার ভিডিওকে কার্টুনিস্ট লার্স ভিল্কসের মৃত্যুর ঘটনা দাবি করে  ভুয়া খবর ছড়ানো হচ্ছে। 

ফেসবুক পোস্ট

প্রসঙ্গত, হযরত মুহাম্মদ (সা.) হল মুসলিম ধর্মের শেষ নবী। ২০০৭ সালে ফ্রান্সের শিল্পী লার্স ভিল্কস একটি ছবিতে মুহাম্মদকে চরম নিন্দনীয় ভাবে উপস্থাপন করেছিল। তারপর থেকেই মুসলমান ধর্মালম্বী গোষ্ঠীর নিশানা হয়ে যান লার্স। শিল্পীকে প্রাণে মেরে ফেলারও হুমকি দেওয়া হয় অনেক বার। ভিল্কস ২০১০ সাল থেকে সুইডিশ পুলিশ দ্বারা ক্রমাগত সুরক্ষার অধীনে ছিলেন। এমনকি ‘আল-কায়েদা ইন ইরাক’ তার হত্যাকারীকে ১০০০০০ ডলার (৭৪৭৭৪৫০ টাকা) পুরস্কার প্রদান করবে বলে ঘোষণা করেছিল। ২০১৫ সালে, ভিল্কস ডেনমার্কের কোপেনহেগেন শহরে বাকস্বাধীনতা নিয়ে একটি তর্ক-বিতর্ক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন। সেখানেও তিনি বন্দুক হামলার নিশানা হয়েছিলেন।

চলতি মাসের ৩ তারিখ লার্স ভিল্কস একটি সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায়। গত বেশ কয়েক বছর ধরে বিতর্কের মধ্যে থাকায় তার মৃত্যু ভালো এবং খারাপ, দুই রকম প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

তথ্য যাচাই

এই দাবির সত্যতা যাচাই করতে ভিডিওটিকে ইনভিড-উই-ভেরিফাই টুলে কয়েকটি কি-ফ্রেমে ভাগ করে গুগলে রিভার্স ইমেজ সার্চ করি। ফলাফলে ‘Ren.TV news’ নামে একটি রাশিয়ান সংবাদ মাধ্যমে ইউটিউব চ্যানেলে এর অনুসন্ধান পাই। ২০১৪ সালের ২২ সেপ্টেম্বর এই ভিডিওটি আপলোড করা হয়েছিল যার শিরোনামে লেখা রয়েছে রাশিয়ান ভাষায় লেখা রয়েছে, ইঝেভস্কের কাছে একটি হাইওয়েতে গাড়ির ভেতরের পুড়ে গেল জীবন্ত চালক। 

উপরের ভিডিও থেকে কিছু শব্দ নিয়ে কিওয়ার্ড সার্চ করে এই একই ঘটনা নিয়ে প্রকাশ করা ‘Ren.TV news’-এর একটি প্রতিবেদন খুঁজে পাই। ২০১৪ সালের ২২ সেপ্টেম্বরের এই প্রতিবেদন থেকে জানতে পারি, ইঝেভস্কের কাছে একটি হাইওয়েতে একজন ঝিগুলি গাড়ির চালক গাড়ির ভেতরেই জ্যান্ত পুড়ে মারা যান। একটি মালবাহী বোঝাই ওয়াগন গাড়ির সাথে ধাক্কা লাগার পর ঝিগুলি গাড়িতে আগুন লেগে যায়। আগুনের তাপ বেশি হওয়ায় চালক গাড়ি থেকে বেরোতে পারে না। প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছে আগুন নেভানোর মতো কোনও নির্বাপক ছিল না। প্রতিবেদনটি পড়ুন এখানে

আরও বেশ কয়েকটি রাশিয়ান ইউটিউব চ্যানেলে এই ঘটনার ভিডিও পাওয়া যায়। একটি রাশিয়ান সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদনে জলন্ত অবস্থায় ওই গাড়ির একটি ছবিও দেখতে পাওয়া যায়। 

নিষ্কর্ষঃ তথ্য যাচাই করে ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো সিদ্ধান্তে এসেছে উপরোক্ত দাবিটি ভুল ও ভিত্তিহীন। ২০১৪ সালের রাশিয়ার একটি সড়ক দুর্ঘটনার ভিডিওকে কার্টুনিস্ট লার্স ভিল্কসের মৃত্যুর ঘটনা দাবি করে  ভুয়া খবর ছড়ানো হচ্ছে।

Avatar

Title:২০১৪ সালের ঘটনাকে মুহম্মদের (সা.) ব্যাঙ্গচিত্র অঙ্কনকারীর শিল্পীর মৃত্যুর সাথে যুক্ত করে ভুয়া পোস্ট ভাইরাল

Fact Check By: Rahul A 

Result: Missing Coontext

Leave a Reply

Your email address will not be published.